কেন্দ্রীয় কারাগার এলাকায় ঐতিহাসিক স্থাপনা সংরক্ষণসহ সবুজ বলয় গড়ে তোলা হোক


ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার দেশের প্রাচীনতম এবং সর্ববৃহৎ কারাগার। ঐতিহাসিক এই কারাগার থেকে বন্দীদের কেরাণীগঞ্জে নবনির্মিত কারাগারে স্থানান্তরিত করা হবে। কারাগার স্থানান্তরিত হওয়ার পর পুরান ঢাকার নাজিমুদ্দিন রোড়স্থ এই কারাগারের স্থাপনা সংরক্ষণ ঐতিহাসিকভাবে গুরুত্বপূর্ণ। তেমনিভাবে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারের ঐতিহ্য সম্মুন্নত রেখে পরিত্যক্ত জায়গায় ঘনবসতিপূর্ণ এই এলাকার মানুষের সামাজিক প্রয়োজনে শিশুপার্ক, খেলার মাঠ, পুকুর, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান স্থাপনসহ সবুজ বলয় গড়ে তোলতে হবে। ২১ জুন ২০১৬, মঙ্গলবার, সকাল ১১টায় পরিবেশবাদী ও সামাজিক ২৫ টি সংগঠনের উদ্যোগে কেন্দ্রীয় কারাগার এলাকার সামনে আয়োজিত মানববন্ধনে বক্তারা উক্ত দাবী জানান।


 
ঢাকার ৮৭ শতাংশ খেজুর ফরমালিনযুক্ত
বাজারে মৌসুমী ফলসহ বিভিন্ন ফলমূলের আধিক্য থাকলেও ভোক্তা সাধারণ বিদ্যমান ফল বিষমুক্ত, নিরাপদ কিনা সে বিষয়ে নিশ্চিত হতে পারছেন না। কারণ বিগত সময়ের অভিজ্ঞতায় দেখা গেছে যে, ফলমূলে ফরমালিনসহ বিভিন্ন ধরণের বিষাক্ত কেমিক্যাল মিশানো হয়। পবা ২০১৩ সাল থেকে রাজধানী ঢাকার বিভিন্ন এলাকা থেকে নমুনা সংগ্রহ করে ফলমূলের ফরমালিন পরীক্ষা করে সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে তা জনসম্মুখে তুলে ধরে আসছে। এর ধারাবাহিকতায় এবারও ঢাকার বিভিন্ন এলাকার ফলের ফরমালিন পরীক্ষা করে দেখা যায় ৮৭ শতাংশ খেজুর ফরমালিনযুক্ত। আজ ১৮ জুন ২০১৬, সকাল ১১টায় পবা কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে উক্ত তথ্য প্রকাশ করা হয়। 

পবার সাধারণ সম্পাদক প্রকৌশলী মোঃ আবদুস সোবহানের সভাপতিত্বে এবং মূল বক্তব্য উপস্থাপনায় সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন পবার যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক ডা: লেলিন চৌধুরী, সমন্বয়কারী আতিক মোরশেদ, মডার্ণ ক্লাবের সভাপতি আবুল হাসনাত, বিসিএইচআরডির নির্বাহী পরিচালক মাহবুল হক প্রমুখ।
সকল প্রাণের জন্য খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে
পৃথিবীতে প্রাণ ও প্রকৃতির বৈচিত্র্যময় সম্পর্ক বিদ্যমান এবং একে অপরের উপর পুরোপুরিই নির্ভরশীল। প্রকৃতির ভেতর মানুষই খাদ্যের উপর শতভাগ অন্যের (প্রাণীসম্পদ, বৃক্ষ-লতা, শস্য, মৃত্তিকা) উপর নির্ভরশীল। সুতরাং মানুষের প্রয়োজনেই পৃথিবীর সকল প্রাণের খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করার একটি সম্মিলিত উদ্যোগ নেয়া জরুরি। খাদ্য শুধু মানুষের জন্য নয়। যে বৃক্ষ মানুষকে অক্্িরজেন দিয়ে বাঁচিয়ে রাখে সেই বৃক্ষের খাদ্যের নিশ্চয়তাও সম গুরুত্বপূর্ণ। তাই “সকল প্রাণের জন্য খাদ্য নিরাপত্তা” এই শ্লোগানকে সামনে রেখে ১১ জুন, শনিবার, সকাল ১১ টায় পবা কার্যালয়ে একটি গোলটেবিল সংলাপের আয়োজন করা হয়।

পবার যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক ডা: লেলিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে এবং বারসিকের প্রোগ্রাম অফিসার ও পবার সম্পাদক ফেরদৌস আহমেদ উজ্জলের সঞ্চালনায় গোলটেবিল সংলাপে বক্তব্য রাখেন নিসর্গী অধ্যাপক দ্বিজেন শর্মা, পবার সাধারণ সম্পাদক প্রকৌশলী মো: আবদুস সোবহান। মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন গবেষক পাভেল পার্থ। অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন- মডার্ণ ক্লাবের সভাপতি আবুল হাসনাত,উন্নয়ন কর্মি এম এ রাকিব,প্রাকৃতিক কৃষি আন্দোলনের দেলোয়ার জাহান,মাশরুম চাষী কিশোর বিশ্বাস কাজল, ইঞ্জিনিয়ার মো: সাত্তার, বাপার যুগ্ম-সম্পাদক মিহির বিশ্বাস,স্থপতি শাহিন আজিজ, মানবাধিকার  কর্মি রাকিবুল হক, শিক্ষক আব্দুল মান্নান পবার সহ-সম্পাদক মো: সেলিম, আমিনুর রসুল প্রমুখ।

প্রখ্যাত নিসর্গী ও লেখক অধ্যাপক দ্বিজেন শর্মা সকল প্রাণের জন্য খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিতকরণের দীর্ঘমেয়াদী কর্মসূচির আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করে তার আলোচনায় বলেন, আমরা সভ্যতার এক সংকটময় মুহূর্তে দাঁড়িয়ে আছি। সকল ধর্মেই সকল প্রাণের নিরাপত্তা ও ভালবাসার কথা আছে। কিন্তু আমরা মানুষ হিসেবে প্রকৃতির অন্য প্রাণসত্তাকে গণ করছি না। প্রকৃতির জীব ও জড় সকল সত্তার প্রতিই আজ আমাদের কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করতে হবে। মানব প্রজাতি ও সভ্যতা টিকে থাকার স্বার্থেই আজ সকলের খাদ্য নিরাপত্তার দাবি তুলতে হবে। এমন একটি ব্যবস্থা গড়ে তুলতে হবে যেখানে সকলেই সকলকে নিয়ে সমানভাবে টিকে থাকতে পারে।

প্রাতিষ্ঠানিক কার্যক্রম


ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার দেশের প্রাচীনতম এবং সর্ববৃহৎ কারাগার। ঐতিহাসিক এই কারাগার থেকে বন্দীদের কেরাণীগঞ্জে নবনির্মিত কারাগারে স্থানান্তরিত করা হবে। কারাগার স্থানান্তরিত হওয়ার পর পুরান ঢাকার নাজিমুদ্দিন রোড়স্থ এই কারাগারের স্থাপনা সংরক্ষণ ঐতিহাসিকভাবে গুরুত্বপূর্ণ। তেমনিভাবে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারের ঐতিহ্য সম্মুন্নত রেখে পরিত্যক্ত জায়গায় ঘনবসতিপূর্ণ এই এলাকার মানুষের সামাজিক প্রয়োজনে শিশুপার্ক, খেলার মাঠ, পুকুর, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান স্থাপনসহ সবুজ বলয় গড়ে তোলতে হবে। ২১ জুন ২০১৬, মঙ্গলবার, সকাল ১১টায় পরিবেশবাদী ও সামাজিক ২৫ টি সংগঠনের উদ্যোগে কেন্দ্রীয় কারাগার এলাকার সামনে আয়োজিত মানববন্ধনে বক্তারা উক্ত দাবী জানান।


 
বাজারে মৌসুমী ফলসহ বিভিন্ন ফলমূলের আধিক্য থাকলেও ভোক্তা সাধারণ বিদ্যমান ফল বিষমুক্ত, নিরাপদ কিনা সে বিষয়ে নিশ্চিত হতে পারছেন না। কারণ বিগত সময়ের অভিজ্ঞতায় দেখা গেছে যে, ফলমূলে ফরমালিনসহ বিভিন্ন ধরণের বিষাক্ত কেমিক্যাল মিশানো হয়। পবা ২০১৩ সাল থেকে রাজধানী ঢাকার বিভিন্ন এলাকা থেকে নমুনা সংগ্রহ করে ফলমূলের ফরমালিন পরীক্ষা করে সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে তা জনসম্মুখে তুলে ধরে আসছে। এর ধারাবাহিকতায় এবারও ঢাকার বিভিন্ন এলাকার ফলের ফরমালিন পরীক্ষা করে দেখা যায় ৮৭ শতাংশ খেজুর ফরমালিনযুক্ত। আজ ১৮ জুন ২০১৬, সকাল ১১টায় পবা কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে উক্ত তথ্য প্রকাশ করা হয়। 

পবার সাধারণ সম্পাদক প্রকৌশলী মোঃ আবদুস সোবহানের সভাপতিত্বে এবং মূল বক্তব্য উপস্থাপনায় সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন পবার যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক ডা: লেলিন চৌধুরী, সমন্বয়কারী আতিক মোরশেদ, মডার্ণ ক্লাবের সভাপতি আবুল হাসনাত, বিসিএইচআরডির নির্বাহী পরিচালক মাহবুল হক প্রমুখ।
পৃথিবীতে প্রাণ ও প্রকৃতির বৈচিত্র্যময় সম্পর্ক বিদ্যমান এবং একে অপরের উপর পুরোপুরিই নির্ভরশীল। প্রকৃতির ভেতর মানুষই খাদ্যের উপর শতভাগ অন্যের (প্রাণীসম্পদ, বৃক্ষ-লতা, শস্য, মৃত্তিকা) উপর নির্ভরশীল। সুতরাং মানুষের প্রয়োজনেই পৃথিবীর সকল প্রাণের খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করার একটি সম্মিলিত উদ্যোগ নেয়া জরুরি। খাদ্য শুধু মানুষের জন্য নয়। যে বৃক্ষ মানুষকে অক্্িরজেন দিয়ে বাঁচিয়ে রাখে সেই বৃক্ষের খাদ্যের নিশ্চয়তাও সম গুরুত্বপূর্ণ। তাই “সকল প্রাণের জন্য খাদ্য নিরাপত্তা” এই শ্লোগানকে সামনে রেখে ১১ জুন, শনিবার, সকাল ১১ টায় পবা কার্যালয়ে একটি গোলটেবিল সংলাপের আয়োজন করা হয়।

পবার যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক ডা: লেলিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে এবং বারসিকের প্রোগ্রাম অফিসার ও পবার সম্পাদক ফেরদৌস আহমেদ উজ্জলের সঞ্চালনায় গোলটেবিল সংলাপে বক্তব্য রাখেন নিসর্গী অধ্যাপক দ্বিজেন শর্মা, পবার সাধারণ সম্পাদক প্রকৌশলী মো: আবদুস সোবহান। মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন গবেষক পাভেল পার্থ। অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন- মডার্ণ ক্লাবের সভাপতি আবুল হাসনাত,উন্নয়ন কর্মি এম এ রাকিব,প্রাকৃতিক কৃষি আন্দোলনের দেলোয়ার জাহান,মাশরুম চাষী কিশোর বিশ্বাস কাজল, ইঞ্জিনিয়ার মো: সাত্তার, বাপার যুগ্ম-সম্পাদক মিহির বিশ্বাস,স্থপতি শাহিন আজিজ, মানবাধিকার  কর্মি রাকিবুল হক, শিক্ষক আব্দুল মান্নান পবার সহ-সম্পাদক মো: সেলিম, আমিনুর রসুল প্রমুখ।

প্রখ্যাত নিসর্গী ও লেখক অধ্যাপক দ্বিজেন শর্মা সকল প্রাণের জন্য খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিতকরণের দীর্ঘমেয়াদী কর্মসূচির আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করে তার আলোচনায় বলেন, আমরা
আমাদের কার্যক্রম
ভিডিও